Image
 
Gifts: Misti | Mahabhoj | Cake
Movie: Bengali | Hindi | Satyajit
Music: Rabindra | Najrul | Adhunik
Books: Children | Pujabarshiki | Novel
নেতাজীর হোমফ্রন্ট- ৭ প্রিন্ট কর ইমেল
লিখেছেন সত্যব্রত মজুমদার   
আর্টিকেল সূচি
নেতাজীর হোমফ্রন্ট- ৭
পাতা 2
পাতা 3
পাতা 4

এর আগে

কীর্তি-কিষাণের বিশ্বাসঘাতকতার পরিণামে উত্তর-পশ্চিম সীমান্ত দিয়ে সুভাষচন্দ্রে সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। সত্যরঞ্জন বক্সী, যতীশ গুহ ও বিনয় সেন গ্রেপ্তার হয়ে যাওয়ায় সমস্ত দায়িত্ব কামাখ্যা রায়ের উপর পড়ল। ভবিষ্যত কর্মপন্থা নির্ধারণের জন্য নূতন করে চিন্তাভাবনা শুরু হলো। এর পর সুভাষচন্দ্র চলে ইউরোপ থেকে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায়। তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করতে হবে ভারত-ব্রহ্ম সীমান্তর সীমান্ত অতিক্রম করে। এবার দেশের মুক্তির জন্য ভারতের এ্যাংলো-আমেরিকান শক্তির উপর আঘাত আসবে ভারতের পূর্বসীমান্ত দিয়ে। কাজেই দেশের অভ্যন্তরিণ সংগঠন ও সে ভাবেই গঠন করতে হবে। পলাতক শান্তি গাঙ্গুলী তখন নারায়ণগঞ্জে। কামাখ্যা রায়ের নির্দেশে শান্তি গাঙ্গুলী কলকাতা এলেন। কামাখ্যাবাবু তার আশ্রয়ের ব্যবস্থা করলেন। তিনি শান্তিবাবুকে ধীরেন মুখার্জ্জী, রাতুল রায় চৌধুরী, সৌরেন চক্রবর্তী, সতীন্দ্র নাথ নিয়োগী (সাধন) প্রমুখের সঙ্গে যোগাযোগ করিয়ে দিলেন। প্রয়োজনে শান্তি গাঙ্গুলি এদের আশ্রয়েও থাকতেন।

১৯৩৯ সালে দ্বীজেন গাঙ্গুলীর মাধ্যমে একজন জাতীয়তাবাদী সিরাজুদ্দিন সাহেব (কৃষক পত্রিকার সঙ্গে যুক্ত) ও তাঁর এক বন্ধুর সঙ্গে কামাখ্যা রায়ের পরিচয় হয়। কামাখ্যা রায়ের সঙ্গে কথাবার্তার সময় দেশের মুক্তি সংগ্রামের ব্যাপারে তাঁকে বিশেষ উৎসাহী মনে হয়। কামাখ্যা রায়ের নির্দেশে দ্বীজেন গাঙ্গুলী সারাজুদ্দিন সাহেবের সঙ্গে সংযোগ রক্ষা করতে থাকেন ভবিষ্যতের কথা মনে রেখে।

কামাখ্যা রায় দ্বীজেন গাঙ্গুলীর মাধ্যমে শান্তি গাঙ্গুলির জন্য সিরাজুদ্দিন সাহেবের আস্তানায়, কৃষক পত্রিকার অফিসে এবং পরে ধর্মতলায় আশ্রয়স্থলের ব্যবস্থা করেন।



 

প্রতিবেশী ওয়েবজিন