Image
 
Gifts: Misti | Mahabhoj | Cake
Movie: Bengali | Hindi | Satyajit
Music: Rabindra | Najrul | Adhunik
Books: Children | Pujabarshiki | Novel
উত্তরণ - পর্ব ৫ প্রিন্ট কর ইমেল
লিখেছেন অনুপম   
আর্টিকেল সূচি
উত্তরণ - পর্ব ৫
পাতা 2
পাতা 3
পাতা 4
পাতা 5
পাতা 6

পাঁচ
এর আগে

বিকেলের রোদটা পশ্চিমের জানলাটা দিয়ে অনিরুদ্ধর ঘরের মেঝেতে তেরছা ভাবে পরেছে। চারজনেই চুপচাপ বসে আছে। মাসি আর স্নিগ্ধা পাশাপাশি মেঝেতে বসে। অনিরুদ্ধ বাবু হয়ে খাটের উপরে বসে আর সমু একটা চেয়ারে। মার কাজ শেষ হওয়ার পর গত পরশু নিয়মভঙ্গ হয়েছে। মায়া কিছুক্ষণ আগে চা দিয়ে গেছে। অনিরুদ্ধর হাতে এখনো চায়ের কাপটা ধরা। মাসির প্রশ্নের ও কি উত্তর দেবে ভেবে পাচ্ছেনা।

মাসি চায়ে একটা চুমুক দিয়ে হঠাৎ অনিরুদ্ধকে কথাটা জিজ্ঞেস করেছিলেন।
-অনু, তুইতো চলে যাবি এই রবিবারে, স্নিগ্ধার ব্যাপারে কিছু কি ভেবেছিস, ওর কি হবে?

অনিরুদ্ধ কি ভাববে? কিই বা ভাবার আছে? স্নিগ্ধার জন্য ও কি করতে পারে? একটা মেয়ে, তার জীবনের সবচেয়ে কঠিন সমস্যার সামনে এসে দাঁড়িয়েছে। একটা সুন্দরী যুবতী মেয়ে, যে ওরই ভ্রাতৃবধূ। কি করবে এই মেয়েটা তার বাকি জীবনটা নিয়ে? একা এই বাড়িতে মেয়েটি কি তার বাকি জীবনটা কাটিয়ে দেবে?

Image
অলংকরণ - সৌরভ চক্রবর্তী

স্নিগ্ধা ওর ভাইয়ের বউ, এটা ভাবতেই কেমন যেন লাগছে। ভাই নেই। সেই ভাইয়ের স্ত্রী এখন অসহায়। কিন্তু অনিরুদ্ধ কিভাবে ওকে সাহায্য করতে পারে? টাকা পয়সাটা কোনো ব্যাপারই না। সমস্যাটা ওর একা থাকা নিয়ে।
-মাসি, স্নিগ্ধা এই বাড়িতেই থাকবে। ও তো এই বাড়িরই বউ। আমি ওখান থেকে প্রত্যেক মাসে টাকা পাঠাব।
-অনু, টাকাটা কোনো সমস্যাই নয়। আমরাও আছি ওকে দেখার জন্য। কিন্তু সমস্যাটা হচ্ছে ও কি এই বাড়িতেই থাকবে একা একা সারাটা জীবন?
-আমার কোনো অসুবিধা হবেনা মাসি। স্নিগ্ধা তাড়াতাড়ি বলল।
মাসি ওর দিকে অবাক চোখে তাকালেন।
-আমি জানি তোর কোনো অসুবিধা হবেনা। কিন্তু আমার অসুবিধা হবে।

মাসির কথায় স্নিগ্ধা অবাক চোখে ওনার দিকে তাকাল। একটু সময় চুপ করে থেকে আবার বলর- মাসি তা হলে আর অসুবিধাটা কোথায়? আমি তো থাকব, তোমার কোনো অসুবিধা হবেনা।
-তা আমি জানিরে পাগলি।
-মা, আমি কি একটা প্রস্তাব দিতে পারি? সমু এতক্ষণ চুপচাপ ছিল। এবার ওর কথাবলায় সবাই একটু অবাক হয়ে ওর দিকে ফিরল।
-কি বলবি বল।

সমু একবার স্নিগ্ধাকে দেখে নিয়ে সোজাসুজি অনিরুদ্ধর চোখে চোখ রেখে বলল- দাদা, তুমি বৌদিকে এ্যামেরিকাতে নিয়ে যাও। -এ্যামেরিকাতে? অনিরুদ্ধ খুব অবাক হল।
-হ্যাঁ দাদা, এ্যামেরিকাতে।
মাসি একটু রাগের সাথে বললেন- আমেরিকাতে কেন?
-ওখানে গেলে বৌদি নতুন ভাবে বাঁচতে পারবে। সমু মার দিকে তাকিয়ে কথাটা বলল।

হঠাৎ করে সারা ঘরে নিরবতা নেমে এল। কেউই কারোদিকে তাকাচ্ছেনা। স্নিগ্ধা ঢালাই মোসেকের মেঝের দিকে তাকিয়ে আছে। মাসি একদৃষ্টে সিলিংএর দিকে তাকিয়ে। অনিরুদ্ধ ডান হাতের আঙুলগুলো দেখছে।
- না স্নিগ্ধা আমেরিকা যাবেনা। মাসির কথায় সবাই চমকে উঠল।
- সমু একটু অসহিষ্ণু ভাবে বলল- কেন, বৌদি যাবেনা কেন?
- ওকে ছেড়ে আমি থাকতে পারবনা। আমার কষ্ট হবে।
- তুমি শুধু নিজের কথাটাই ভাবছ মা। কিন্তু বৌদি সারাটা জীবন কি নিয়ে থাকবে ভেবেছ?
- সমুর কথায় স্নিগ্ধা সোজাসুজি ওর দিকে তাকাল। তারপর চুপচাপ উঠে দাঁড়িয়ে ঘর থেকে বেরিয়ে গেল।
- ওর চলে যাবার দিকে তাকিয়ে মাসি বললেন- সমু, আমি কিন্তু প্রথম থেকেই বলছি তোর কথাটাই, স্নিগ্ধা সারা জীবন একা একা কি করে কাটাবে এই বাড়িতে? দিদিকে আমি কথা দিয়েছিলাম, আমি স্নিগ্ধাকে সব সময় আগলে রাখব। ও যদি চলে যায় তাহলে আমি ওকে কি করে আগলাব?



 

প্রতিবেশী ওয়েবজিন