Image
 
Gifts: Misti | Mahabhoj | Cake
Movie: Bengali | Hindi | Satyajit
Music: Rabindra | Najrul | Adhunik
Books: Children | Pujabarshiki | Novel
উত্তরণ - পর্ব ১৩ প্রিন্ট কর ইমেল
আর্টিকেল সূচি
উত্তরণ - পর্ব ১৩
পাতা 2
পাতা 3
স্নিগ্ধা খাট থেকে নেমে বাথরুমের দিকে চলল।
মাসি আবার সুটকেস গোছানোয় মন দিলেন।
স্নান করে বাথরুম থেকে বেরিয়ে স্নিগ্ধা মার ঘরে গেল।

ঘরটা আজ সকালেই স্নিগ্ধা মনের মত করে গুছিয়েছে। মা ঠিক যেমনটা চাইতেন, সেই ভাবেই ঘরটা সাজিয়েছে। খাটে একটা সবুজ রঙের লতাপাতা আঁকা চাদর পাতা। সমুর এনে দেওয়া লাল গোলাপের কুঁড়িগুলো একটা ফুলদানিতে সুন্দর করে সাজানো। খাটের ওপরে মার শেষ বয়সের একটা ছবি। মা ঠোঁট চেপে হাসছেন। অদ্ভুত ভাবে তাকিয়ে আছেন। ছবিটা যেদিক থেকেই দেখা যায় মনে হয় মা সেই দিকেই তাকিয়ে আছেন।

স্নিগ্ধা মার খাটের একটা ধারে দিয়ে বসল চিরুনি হাতে নিয়ে। চুল আঁচড়াতে আঁচড়াতে ছবিটার দিকে তাকাল।

মা একদৃষ্টে ওর দিকে তাকিয়ে আছেন। মা কি কিছু বলতে চাইছেন? স্নিগ্ধার মনে হল মার ঠোঁটদুটো যেন একটু নড়ে উঠল। একটা মিষ্টি গন্ধ স্নিগ্ধার নাকে এসে লাগল। মা যে পারফিউমটা মাখতেন এটা সেই পারফিউমের গন্ধ। কেমন যেন একটা ভালো লাগা হচ্ছে মনের মধ্যে।

গন্ধটা যেন খুব কাছ থেকে আসছে। স্নিগ্ধা একবার সারা ঘরটা দেখে নিল। না কেউ কোথাও নেই। তাহলে কি মা এসেছেন। মাথাটা নিচু করে চোখদুটো বন্ধ করল স্নিগ্ধা। একটা আবেশে সারা শরীরটা অবশ হয়ে আসছে।

হঠাৎ পাশের ঘরে ফোনটা ঝনঝন করে বেজে উঠল।
চমকে উঠে দাঁড়াল স্নিগ্ধা। এক মূহুর্তে ঘোরটা কেটে গেল। পাশের ঘরে মাসি ফোনটা ধরেছেন। কারো সাথে বেশ চিৎকার করে কথা বলছেন।
স্নিগ্ধা, স্নিগ্ধা এদিকে আয় অনু ফোন করেছে।
আসছি মাসি।
স্নিগ্ধা পাশের ঘরে গেল।
আমেরিকা থেকে অনিরুদ্ধ ফোন করেছে।
ফোনটা হাতে নিয়ে স্নিগ্ধা একটা সোফায় বসল।
হ্যালো, কে দাদা?
হ্যাঁ, আমি দাদা বলছি। সব ঠিকঠাক তো স্নিগ্ধা?
হ্যাঁ দাদা।
আর তো কিছুক্ষণ পরেই বেরবে, তাই না?
হ্যাঁ।
এখানের এয়ারপোর্টে নেমে ইমিগ্রেসনের ঝামেলা মিটিয়ে বাইরে এলেই আমাকে দেখতে পাবে। কোনো চিন্তা কোরোনা।
সাবধানে আসবে।
হ্যাঁ দাদা।
আমার ফোন নম্বারটা সাথে রাখবে, দরকার হলে আমাকে কালেক্ট্ কল্ করবে। তোমার কোনো পয়সা লাগবেনা।
ঠিক আছে।
দেখা হবে। গুড লাক্। বাই।
বাই।
ফোনটা রেখে স্নিগ্ধা মাসির দিকে তাকালো। কোনো কথা না বলে হাত পা ছেড়ে দিয়ে অলস ভাবে সোফায় বসে রইল।
মাসি স্নিগ্ধার দিকে তাকিয়ে হাসি হাসি মুখে বললেন,- আর বসে থাকিসনা মা। রেডি হয়েনে। আমার সুটকেস গোছানো শেষ।
স্নিগ্ধা মাসির দিকে একটা হাত বাড়িয়ে দিয়ে বলল-মাসি আমার কাছে একটু এসে বসনা। ভীষণ ভয় করছে আমার।
ভয় করছে? কেন?
জানিনা।
কিচ্ছু চিন্তা করিসনা মা, সব ঠিকঠাক হবে। এখন ওঠ, রেডি হয়েনে। আমি সবার খাবারটা বাড়ি। আর তো সময় নেই, ঘন্টা দু-একের ভেতরেই আমাদের বেরতে হবে।

স্নিগ্ধা কাঁপা কাঁপা বুকে ক্লান্ত ভাবে উঠে দাঁড়াল। কোনো রকমে পা দুটোকে টেনে নিয়ে আলমারির সামনে এসে একটা পাল্লা খুলে হালকা ঘিয়ে রঙের সিফনের শাড়িটা বার করল। গতকালই ঠিক করে রেখেছিল এই শাড়িটা ও পরে যাবে। এই শাড়িটা গতবারের পুজোয় মা দিয়েছিলেন।

স্নিগ্ধা শাড়ি, ব্লাউজ আর সায় বুকের মধ্যে নিয়ে মার ঘরে গিয়ে দরজা আটকে দিল।

(এর পর আগামী সংখ্যায়)

Comments (0) >>
Write comment

This content has been locked. You can no longer post any comment.


busy

অনুপম
About the author:


 

প্রতিবেশী ওয়েবজিন