Image
 
Gifts: Misti | Mahabhoj | Cake
Movie: Bengali | Hindi | Satyajit
Music: Rabindra | Najrul | Adhunik
Books: Children | Pujabarshiki | Novel
বিসর্জন অথবা একটি মিথ্যে রূপকথা - ৪ প্রিন্ট কর ইমেল
আর্টিকেল সূচি
বিসর্জন অথবা একটি মিথ্যে রূপকথা - ৪
পাতা 2
পাতা 3

চার
এর আগে

সিধুজেঠুর কাছে বিশদে পুরোটা শুনে আতঙ্কে দমবন্ধ হয়ে এলো আমার। আমি বললাম, ‘জেঠু এর থেকে বাঁচবার কি সত্যি কোনো উপায় নেই? এই অন্যায়ের কেউ কি কোনো প্রতিবাদও করে না?’

কথাটা শুনে কি একটা ব্যঙ্গের হাসিই না দিলো জেঠু। ‘বললো, প্রতিবাদ? কে করবে প্রতিবাদ? ওরে প্রতিবাদ তো অনেক পরের ব্যাপার, সর্বনাশা ক্ষতির এই গল্পটা এতটা তলিয়ে ভেবে দেখারই ক্ষমতা নেই কারু। সভ্যতার যত উন্নতি হবে, ঠিক তার সঙ্গে তাল মিলিয়েই নষ্ট হয়ে যাবে মানুষের যুক্তি দিয়ে ভাবার ক্ষমতা। এটাই যে নিয়ম। তার ওপর, এদেশে ধর্মের লেবেল মারলে সবরকমের নির্বুদ্ধিতা, লুচ্চামি আর গুন্ডামিই বৈধতা পেয়ে যায়। ইতিহাস ভালো করে পড় বুচান, ইতিহাস ভালো করে পড়। ন্যায্য কথা বলতে গেলেই তোর গায়ে লেবেল পড়ে যাবে বিচ্ছিন্নতাবাদী বলে। শুধু আজ বলে নয় রে। যুগে যুগে। আর এতে ধর্মের পাঁচফোড়ন থাকলে বেধে যেতে পারে দাঙ্গাও। না-না। পুজো-টুজো তো হলো ভয়ংকর মাস হিস্টিরিয়া রে। এসবের প্রতিবাদ করতে গিয়ে শেষটা কি মরবি নাকি।’

‘এই অবস্থাটা তো বিসর্জনের চারদিনই মোটে চলবে। তাহলে মা বললো কেন, এই মড়কের ঋতু চলবে টানা দু মাস?’

সিধুজেঠু বললো, ‘তোর কী আক্কেল রে? তুই কি ভাবলি দেবী নম্বর এক-এর পুজো শেষ হলেই সব আপদ চুকে গেল। মাগো মা। জানিস না, শুধু একটা দেবীপুজো নয়, এসময় চলে একের পর এক পুজোর মিছিল। দেবী নম্বর এক-এর পর দেবী নম্বর দুই, তারপরে দেবী নম্বর তিন, তারও পরে দেবী নম্বর চার। এদের মধ্যে ফাঁকতালে হয়তো একটা-দুটো পুরুষ দেবতারও পুজো। শুধু এখানে নয়। গোটা দেশেই। একেক জায়গায় একেক দেবতা। কিম্বা একই দেবতার অনেকগুলো ভার্সন। ওরে বুচান, এই মরসুমটাই হলো ধম্মো পালনের। ওদের ধম্মো। আর আমাদের মৃত্যু। সাজানো রংচঙে প্রতিমার গলায় যেন সাপ সেজে ঝুলে থাকে মরন রে তুহু মম শ্যাম সমান........’

এবার আর কোনো কথা জুগলো না আমার মুখে। অক্টোপাস জেঠু ফের তার আটটা হাতের একটা দিয়ে আমার কপালে একটু সুড়সুড়ি দিয়ে বললো, ‘বেশি ভাবিস না সোনা আমার। কপালে মৃত্যু থাকলে কে বাঁচাবে কাকে। তবে মা-র কথা শুনে যদি গোটা সময়টা স্রেফ মাঝনদীতেই কাটিয়ে দিতে পারিস, ঘাটের দিকে যদি মোটে না ঘেঁষিস একদম, তবে এই মড়কের ছোঁয়াচ হয়তো লাগবে ঈষৎ কম। আর এদিকে আমরাও কিন্তু বসে নেই। গত কয়েকবছর ধরেই সামুদ্রিক চিংড়ির দল প্রচন্ড গবেষণা করছে এই মহামড়কের প্রতিষেধক বের করার জন্য। একবার তেমন কোনো ওষুধ আবিষ্কার হয়ে গেলে তো মহামজা তোর। ছোট্ট একটা ইঞ্জেকসন নিয়ে নিবি, ব্যাস তারপরে কোনো মানুষের তৈরি বিষ আর আমার বুচানবাবুর কিচ্ছুটি করতে পারবে না।’



 

প্রতিবেশী ওয়েবজিন